ব্রেকিং নিউজ:
শান্তি না ফেরা পর্যন্ত যৌথবাহিনীর অভিযান চলবে: প্রধানমন্ত্রী
    জানুয়ারী ২০, ২০১৪, সোমবার,     ০৮:০২:১৫

 

যেকোনো মূল্যে সাতক্ষীরাকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মুক্ত করা হবে—এমন ঘোষণা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যতদিন শান্তি আসবে না ততদিন এখানে যৌথবাহিনীর অভিযান চলবে, যারা এখানে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছে তাদের কেউ রেহাই পাবে না।
সোমবার সাতক্ষীরা সার্কিট হাউজে মৌলবাদী সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাথে মতবিনিময়ের পর সাতক্ষীরা বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় এসব কথা বলেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি আপনাদের এই বলে আশ্বস্ত করতে চাই, সাতক্ষীরায় সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ থাকবে না। সে জন্য যা যা করণীয় তা করা হবে।’
শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচনের পরে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলার ঘটনা দুঃখজনক—মানুষ যাতে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারে সে ব্যাপারে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।
খালেদা জিয়ার উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি নেতার সাধ্য নেই যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর। যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর জন্য তিনি মানুষ খুন করেছেন, সাতক্ষীরাকে রক্তাক্ত করেছেন। তবে তিনি তাদের বাঁচাতে পারবে না, এদেশের মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবেই হবে।
প্রধানমন্ত্রী সাতক্ষীরাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান, যেকোনো অবস্থায় সন্ত্রাসের মোকাবিলা করতে নিজের শক্তি নিয়ে দাঁড়াতে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা আপনাদের পাশে আছি। যেকোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করব। বাংলার মাটিতে সকল ধর্ম, বর্ণের মানুষ সবার অধিকার নিয়ে বসবাস করবে।
শেখ হাসিনা দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, যেকোনো জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে মানুষের নিরাপত্তা তার সরকার নিশ্চিত করবে। বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য জীবন দিতেও প্রস্তুত আছেন বলে জানান তিনি।
বিরোধী দলের নেতার সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, জামায়াতের ব্যথায় ব্যথিত হয়ে খালেদা জিয়া নির্বাচন বর্জন করেছেন, নির্বাচনে বাধা দেয়ার চেষ্টা করেছেন। নির্বাচনের আগে ও পরে হরতাল-অবরোধ দিয়ে মানুষ মেরেছেন।
বিএনপির রাজনীতিকে সন্ত্রাসবাদ আখ্যা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ এক সময় দেশে স্লোগান প্রচলিত ছিল যে ‘বিএনপির দুই গুন, দুর্নীতি আর মানুষ খুন।’ তিনি অভিযোগ করেন, এখন তাদের দোসর হলো জামাত শিবির। ৭১’ সালে যারা গণহত্যা, নির্যাতন ও নিপীড়ন চালিয়েছিল তারা হয়েছে বিএনপির দোসর।
শেখ হাসিনা বিএনপির নেতা খালেদা জিয়ার উদ্দেশে বলেন, ‘আমরা দেশে শান্তি আনতে চাই। কিন্তু একজন অশান্তি বেগম আছেন। উনি মানুষের শান্তি দেখতে পারেন না।’ তিনি বলেন, শত বাধা পেরিয়েও নির্বাচন হয়েছে। আমরা সরকার গঠন করেছি। আমরা আপনাদের পাশে আছি। তিনি বিএনপির নেতার উদ্দেশে বলেন, তিনি যেন মানুষের শান্তি নষ্ট না করেন। নির্বাচনে না এসে তিনি যে ভুল করেছেন তার খেসারত তাঁকে দিতে হবে।
এর আগে সার্কিট হাউসে প্রধানমন্ত্রী গত ২৮ ফেব্রুয়ারি সাতক্ষীরায় বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের শিকার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের মাঝে অনুদানের চেক প্রদান করেন।
এসময় শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত আন্দোলনের নামে তাদের সন্ত্রাসী ও জঙ্গি তৎপরতা চালিয়েছে। এ ধরনের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড কোনভাবে মেনে নেয়া যায় না । সরকার এই অঞ্চলের মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সবকিছুই করবে।
প্রসঙ্গত, সাতক্ষীরায় ২০১৩ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীদের হাতে ১৬ জন খুন হয়েছে।

এম. এস/১৭:৪৫
বিভাগ: দেশযোগ   দেখা হয়েছে ৬৮৫০ বার.

 

শেয়ার করুন :

 
মন্তব্য :